মেনু নির্বাচন করুন

সাভার উপজেলাধীন ফ্যান্টাসী কিংডম

ফ্যান্টাসী কিংডমকে বাংলাদেশের ডিজনীল্যান্ড বললে অত্যুক্তি হবে না। এটি দেশের একটি অন্যতম প্রধান দর্শনীয় চিত্তবিনোদনমূলক পার্ক এবং ইতোমধ্যে এই পার্কটি পর্যটকদের আকর্ষনীয় স্থানে পরিনত হয়েছে। পার্কটির পরিদর্শকদের থাকার জন্য এখানে রয়েছে ৪ তারকা বিশিষ্ট হোটেল যেখানে রয়েছে ২০০ রুম, হলরুম, রেষ্টুরেন্ট এবং রিসোর্ট সিটি। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই বিদেশী রাইড, আন্তর্জাতিক মানের সেবা ও নির্মল বিনোদনের জন্য ক্রমেই ভ্রমণপিপাসু মানুষের নিকট আলাদা স্থান করে নিয়েছে ফ্যান্টাসী কিংডম। বিভিন্ন উৎসব দিনসহ বিশেষ দিন উপলক্ষ্যে এখানে নিয়মিত আয়োজন করা হয় কনসার্টের। বছরের বিশেষ দিন

 

ঠিকানা এবং অবস্থান

ফ্যান্টাসী কিংডম

পার্কটির অবস্থান

কর্পোরেট অফিস

ঢাকা আশুলিয়া হাইওয়ে,

জামগড়া, আশুলিয়া।

ইমেইল: fantasykingdom@concordgroup.net

ওয়েব: www.fantasy-kingdom.net.bd

কনকর্ড সেন্টার

৪৩ উত্তর বাণিজ্যিক এলাকা

গুলশান-২, ঢাকা ১২১২।

ফোন: ০১৯৭৭৮৮৫৫০৭, ০১৯৩৭৪০২৯৪৮

ওয়েব সাইট: www.concordgroup.net

 

সাভার উপজেলাধীন আশুলিয়া এলাকায় প্রায় ২০ একর জায়গার উপর ২০০২ সালে বাংলাদেশের প্রথম থিম পার্ক ফ্যান্টাসী কিংডম – এর যাত্রা শুরু। এটি নির্মাণ ও তত্ত্বাবধানকারী প্রতিষ্ঠান কনকর্ড গ্রুপ।

ফ্যান্টাসী কিংডম আসার সহজ পথ

বাসে

প্রাইভেট গাড়ীতে

মঞ্জিল বাস ঢাকার মতিঝিল, মহাখালি ছাড়াও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ লোকেশন থেকে ফ্যান্টাসী কিংডমের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।  মঞ্জিল বাসে উঠলে মহাখালী, কাকলী, উত্তরা, টঙ্গী, কামাড়পাড়া হয়ে ফ্যান্টসী কিংডমের প্রবেশমূখে এসে থামে।

প্রাইভেট গাড়ী, মাইক্রোবাসে করে আসতে চাইলে ম্যাপ দেখুন ফ্যান্টাসী কিংডম ম্যাপ

এখানে ক্লিক করুন

 

খোলা ও বন্ধের সময়সূচী

পার্কটি সপ্তাহের ৭দিনই খোলা থাকে। সাধারন দিনগুলোতে সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এবং সরকারী ছুটির দিনগুলোতে এটি সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

 

রাইডগুলো

এখানে আন্তর্জাতিক মানের সব রাইড রয়েছে। যা একসময় দেশের মানুষ বিভিন্ন বিদেশী ছবিগুলোতে দেখেছে। রাইডগুলো হলো – প্যাডেল বোট, ম্যাজিক কার্পেট, বাম্পার বোট, বাম্পার কার্ট, ইজিডিজি, জুজু ট্রেন, রোলার কোস্টার, হ্যাপি, ক্যাংগারু, শান্তা মারিয়া, জায়ান্ট ফ্লিউম, বইআরলি বার্ড।

 

টিকেটের মূল্য ও প্যাকেজ

ফ্যান্টাসী কিংডমে প্রবেশ মূল্য ও রাইড মিলিয়ে বিভিন্ন প্যাকেজ রয়েছে। একমাত্র কোলের বাচ্চা ছাড়া সকলের টিকেট সংগ্রহ করতে হয়। বয়স্কদের জন্য প্রবেশ- ৩৮০, প্রবেশ + সব রাইড ৭০০ টাকা, প্রবেশ + সব রাইড (প্যাকেজ লিয়া) ৫০০ টাকা। চার ফুটের নীচে বাচ্চাদের প্রবেশ - ২৫০, প্রবেশ + সব রাইড ৪৫০ টাকা, প্রবেশ + সব রাইড (প্যাকেজ লিয়া) ৩৫০ টাকা।

 

ফ্যামেলি প্যাকেজ (৪ জন)

প্রবেশ + সব রাইড (প্যাকেজ আশু) + লাঞ্চ/ডিনার - ৩৪০০

প্রবেশ + সব রাইড (প্যাকেজ লিয়া) + লাঞ্চ/ডিনার – ২৭০০

 

স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বিশেষ আয়োজন

দেশের বিভিন্ন স্কুল থেকে আগত ছাত্র-ছাত্রীদের গ্রুপ বা দলের জন্য রয়েছে এখানে হ্যারিটেজ পার্ক। ছাত্র-ছাত্রীরা হ্যারিটেজ পার্কটি প্রদর্শন করে বাংলাদেশের ঐতিহ্য সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে এবং শিখতে পারে। বাংলাদেশের কীর্তি স্তম্ভের অনুলিপি প্রদর্শনের মাধ্যমে এসকল ছাত্র-ছাত্রীরা বিভিন্ন তথ্য জানার সুযোগ পায়। এছাড়া তারা বিভিন্ন ছোট ছোট গ্রাম পরিদর্শন করে হস্তশিল্প সম্পর্কে সম্যক ধারণা অর্জন করতে পারে। ফ্যান্টাসী কিংডমের স্থাপত্যশৈলী সম্পর্কেও তারা জানতে পারে। ছাত্র-ছাত্রীরা শিক্ষা অর্জনের পরপরই এখানে বিভিন্ন আনন্দদায়ক খেলায় মনোনিবেশ করতে পারে এবং আকর্ষনীয় রাইডগুলো উপভোগ করতে পারে। এখানে তারা আশু এবং লিয়ার সাথে সাক্ষাত করতে পারে এবং স্মৃতিস্বরূপ তাদের সাথে ছবি তুলতে পারে।

 

রেষ্টুরেন্ট এবং খাবার দাবার

  • আশুলিয়া ক্যাসেল রেষ্টুরেন্ট: থাই এবং ইন্টারন্যাশনাল মেনুতে খাবার পরিবেশন করা হয়।
  • ওয়াটার টাওয়ার ক্যাফে: বারবিকিউ ফুড এবং পিজা পাওয়া যায়।
  • রোলার কোস্টার স্টেশন: স্পাইসি ফ্রাইড চিকেন, বার্গার ইত্যাদি ফাষ্টফুড পাওয়া যায়।

রাইডসমূহের ধরণ

http://www.fantasy-kingdom.net.bd/fantasy_kingdom_rides.html

Thrills & laughs

Family Fun

Young Fun

 

সুবিধাসমূহ

ফ্যান্টাসী কিংডমে বেড়াতে এসে যদি কেউ থাকতে চান তাদের জন্য রয়েছে ৬০ কক্ষ বিশিষ্ট মোটেল আটলান্টিস রিসোর্ট হোটেল। এছাড়া কর্পোরেট পিকনিক, বিবাহোত্তর সম্বর্ধনা, জন্মদিনের পার্টি, কোম্পানী মিটিং/সেমিনার, স্কুল/কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয়ের পুনর্মিলনী আয়োজনের ব্যবস্থা করে থাকে কর্তৃপক্ষ। এখানে একসাথে ৬,০০০ লোকের ব্যবস্থা করা যায়। অনুষ্ঠানের দিনে সাধারন দর্শনার্থীর প্রবেশ বন্ধ থাকে। যা পূর্বে পত্রিকায় বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হয়। থিম পার্কের ভেতরে রেষ্টুরেন্ট/ফাষ্ট ফুডের দোকান ও বাইরে পর্যাপ্ত গাড়ি পার্কিং-এর ব্যবস্থা রয়েছে। বেসরকারী ব্যবস্থাপনার কারণে পার্কের ভেতরে হকারের উৎপাত নেই।

 


Share with :

Facebook Twitter